হযরত ইমাম মাহদী (আ.)-এর আগমন ও চন্দ্র-সূর্য গ্রহণ: Advent of Promised Messiah (as) and Eclipse

Front Cover
Ahmadiyya Muslim Jama'at, Bangladesh., Mar 1, 2018 - 42 pages
0 Reviews

 ইমাম মাহদী ও প্রতিশ্রুত মসীহ (আ.)-এর আবির্ভাবের ও তাঁর সত্যতার এক অসাধারণ ও অভূতপূর্ব নিদর্শন দাবিকারকের উপস্থিতিতে একই রমযানের ১৩ তারিখে চন্দ্রগ্রহণ ও ২৮ তারিখে সূর্যগ্রহণ। ১৮৯৪ সালে এ নিদর্শন প্রকাশিত হয়।

১৯৯৪ সালে এই নিদর্শনের শতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে হযরত খলীফাতুল মসীহ রাবে’ (রাহে.)-এর নির্দেশনা অনুসারে আহমদীয়া মুসলিম জামা’তের বিশিষ্ট বুযুর্গ এবং একাধারে প্রথিতযশা জ্যোতির্বিজ্ঞানী হাফেয প্রফেসর সালেহ মোহাম্মদ আলাদীন তাঁর সহকর্মী প্রফেসর জি. এম. বল্লভ-কে নিয়ে এ বিষয়ে বিস্তারিত গবেষণা করেন। তাদের গবেষণার সারাংশ ১৯৯৪ সালের যুক্তরাজ্য সালানা জলসার বক্তৃতায়, রিভিউ অফ রিলিজিয়ন্স-এ প্রকাশিত কয়েকটি প্রবন্ধে, এবং বিস্তারিত ফলাফল তাঁর আরো কতক বক্তৃতা ও প্রবন্ধে প্রকাশ করেন। তাঁর এ সকল লেখা থেকে সংকলন করে আহমদীয়া মুসলিম জামা’তের ওয়েবসাইট www.alislam.org-এ The Advent of the Promised Mahdi and the Lunar and Solar Eclipses (প্রতিশ্রুত মাহদীর আবির্ভাব এবং চন্দ্র ও সূর্য গ্রহণ) শিরোনামে একটি প্রবন্ধ রাখা হয়েছে, যা এ সংকলনের প্রথম প্রবন্ধ। পরবর্তীতে আহমদী বিরোধী কিছু ওয়েবসাইটে ড. ডেভিড ম্যাক্নটন-এর Flaws in the Ahmadiyya Eclipse Theory (গ্রহণ সংক্রান্ত আহমদীয়া মতবাদের ত্রুটিসমূহ) শিরোনামে করাচী থেকে প্রকাশিত হামদর্দ ইসলামিকাস জার্নালে প্রকাশিত প্রবন্ধ তুলে দিয়ে দাবি করা হয় যে, এতে বৈজ্ঞানিকভাবে প্রফেসর আলাদীনের প্রবন্ধের খণ্ডন করা হয়েছে। অনুরূপভাবে যুক্তরাষ্ট্রের ইদারা দাওয়াত ও ইরশাদ থেকেও একটি প্রবন্ধ Fraud of the Eclipses (গ্রহণগুলো নিয়ে ধোঁকাবাজি) নামে প্রকাশিত হয়। এ দু’টো প্রবন্ধে উত্থাপিত আপত্তিসমূহের উত্তর প্রফেসর আলাদীন তাঁর দু’টো প্রবন্ধে দিয়েছেন যেগুলো আমাদের ওয়েবসাইটে ও দ্বিতীয়টি রিভিউ অফ রিলিজিয়ন্স মে-জুন ১৯৯৯ সংখ্যায় The Truth about Eclipses (গ্রহণ সংক্রান্ত প্রকৃত সত্য) শিরোনামে প্রকাশিত হয়।
 

What people are saying - Write a review

We haven't found any reviews in the usual places.

Selected pages

Common terms and phrases

১৩ ১৪ ১৮৯৪ ১৯৯৪ ২১ মার্চ ২৮ ২৯ অত্যন্ত অনুসারে অন্য অর্থাৎ আপত্তি আমরা আমাদের আমার আর আরো আল্লাহর আহমদ আহমদীয়া ইরান এই এক একই একটি এটা এটি এবং এভাবে এর এর আগে ঐশী ওহী কথা করতে করবে করা হয় করা হয়েছে করে করেছেন করেন কিন্তু কুরআন কোনো খণ্ড খ্রিষ্টাব্দে গ্রহণের চন্দ্র ও সূর্যগ্রহণ চন্দ্রগ্রহণ চন্দ্রগ্রহণ ও সূর্যগ্রহণ চাঁদ চাদ ছিল জন্য তখন তবে তা'লার তার তারিখে তিনি তোমরা থাকে থেকে দাবি দাবিকারকের দাবির দুটি দ্বিতীয় না নিদর্শন নিদর্শন হিসেবে নিয়ে নির্ধারিত পর পর্যন্ত পৃথিবী পৃষ্ঠা প্রতিশ্রুত প্রথম প্রফেসর বর্ণনা বলা হয়েছে বলে বলেন বিস্তারিত জানতে দেখুন ভবিষ্যদ্বাণী ভারতের মধ্যম মধ্যে মহানবী মাওউদ আ মার্চ মাসে চন্দ্র মাসের মাহদী মির্যা মুহাম্মদ যখন যদি যা যার যে রমযান মাসে রূহানী খাযায়েন লাভ সংঘটিত হয় নি সংঘটিত হয়েছে সত্যতার সময় সময়ে সমর্থনে সম্পর্কে সালে সূর্য সূর্যগ্রহণ সংঘটিত সেই হওয়ার হতে পারে হবে হযরত মসীহ মাওউদ হয়ে হলো হাদীসটির হাদীসে হিজরীতে Eclipses

About the author (2018)

 হাফেয ড. সালেহ মুহাম্মদ আলাদীন ১৯৩১ সালের ৩ মার্চ ভারতের হায়দ্রাবাদে জন্মগ্রহণ করেন এবং ২০১১ সালের ২০ মার্চ অমৃতসরে মৃত্যুবরণ করেন।

প্রফেসর আলাদীন ভারতের একজন প্রখ্যাত আহমদী মুসলিম জ্যোতির্বিদ ছিলেন। ১৯৬৩ সালে যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পি.এইচ.ডি. ডিগ্রী লাভ করেন। ১৯৬৪ সাল থেকে হায়দ্রাবাদের ওসমানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্যোতির্বিদ্যা বিভাগে (যা সেন্টার ফর এ্যাডভান্স্ড স্টাডিজ ইন এ্যাস্ট্রোনমি নামেও পরিচিত) অধ্যাপনা করেন এবং এক সময়ে সেন্টারটির পরিচালকের দায়িত্বও পালন করেন। তিনি এর সাথে যুক্ত নিযামিয়া মানমন্দির (যা বর্তমান জপল-রাঙাপুর মানমন্দির নামে পরিচিত)-এর পরিচালকের দায়িত্বও পালন করেন। ১৯৯২ সালে তিনি এ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অবসর গ্রহণ করেন। প্রফেসর আলাদীন ১৯৮১ সালে ভারতীয় বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের মেঘনাদ সাহা পদক লাভ করেন। তিনি একাধারে ইন্টারন্যাশনাল এ্যাস্ট্রোনমিক্যাল ইউনিয়ন, এস্ট্রোনমিক্যাল সোসাইটি অব ইন্ডিয়া, প্লাজমা সায়েন্স সোসাইটি অব ইন্ডিয়া, দি ইন্ডিয়ান এ্যাসোসিয়েশন ফর জেনারেল রিলেটিভিটি এন্ড গ্রাভিটেশন, ইন্ডিয়া সহ বহু বিজ্ঞানভিত্তিক সংগঠনের সম্মানিত সদস্য ছিলেন। তিনি রাষ্ট্রপতি এ পি জে আব্দুল কালাম-এর শিক্ষা বিষয়ক উপদেষ্টা হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।

সাহেবযাদা মির্যা ওয়াসিম আহমদ সাহেবের ইন্তেকালের পর হযরত খলীফাতুল মসীহ খামেস (আই.) তাঁকে সদর, সদর আঞ্জুমানে আহমদীয়া কাদিয়ান (ভারতে আহমদীয়া মুসলিম জামা’তের সর্বোচ্চ দায়িত্ব) হিসেবে নিযুক্ত করেন এবং তিনি আমৃত্যু এ দায়িত্ব পালন করেন।

Bibliographic information